অফিসে বসেই ইয়াবা সেবন, ভিডিও ভাইরাল

21

মতিউল আলম, ময়মনসিংহ থেকে::
ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার সহকারী ভূমি কমিশনার কার্যালয়ের প্রধান সহকারী কাম হিসাবরক্ষক কর্মকর্তা সমীর কুমার চক্রবর্তী অফিসে বসেই ইয়াবা সেবন করছেন। এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে উপজেলাসহ জেলার সর্বত্র। সমালোচনার ঝড় বইছে স্থানীয় প্রশাসনের ভিতরে-বাইরে।

ওই ভিডিওতে দেখা যায়, সমীর কুমার চক্রবর্তী অফিসের চেয়ারে বসে ইয়াবা সেবন করছেন। সহযোগীতায় হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন পাশে থাকা অচেনা এক ব্যক্তি।

তবে ইয়াবা সেবন বিষয়ে জানতে চাইলে সমীর কুমার চক্রবর্তী বলেন, ওই বিষয়ে আমার কোন কথা নেই। আমি কিছু দেখতেও চাই না।

বুধবার (১৩ নভেম্বর) দুপুরে ময়মনসিংহ দুর্নীতি দমন কমিশনের উপ-সহকারী পরিচালক সাধন চন্দ্র সুত্রধরের নেতৃত্বে ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতির অভিযোগে ওই কার্যালয়ে অভিযান চালায় দুদক। এ সময় খোদ ভূমি অফিসের একাধিক কর্মচারী সমীর কুমার চক্রবর্তীর ইয়াবা সেবনের অভিযোগসহ অনিয়ম-দূর্নীতির নানান অভিযোগ তুলে ধরে দুদক কর্মকর্তাদের কাছে বক্তব্য রাখেন।

ময়মনসিংহ দুদকের উপ-পরিচালক সাধন চন্দ্র সূত্রধর জানায়, ২০১০ সালের ১২০৭ নং একটি মোকাদ্দমার ডিসিআর কাটতে টাকা দাবির অভিযোগে উপজেলা ভূমি কার্যালয়ে অভিযান চালালে ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতির প্রমান মিলে। অফিসের কার্যক্রমের খাতাপত্রে সঠিক কোন রেকর্ডপত্র নেই। অনেক কাজের অনুমোদন থাকলেও কর্মকর্তার স্বাক্ষর নেই বা সিল নেই। অফিসের রেজিষ্ট্রারে এর প্রমান রয়েছে। এসব অনিয়ম-দূর্নীতির বেশকিছু তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে এবং সংশ্লিষ্ট অনেকের বক্তব্য গ্রহন করা হয়েছে। তবে ভূমি অফিসের অনিয়ম-দূর্নীতির সাথে মূলহোতা নাজির রুখতিয়ার উদ্দিন রুকন ছাড়াও সংশ্লিষ্ট সহকারী কমিশনার(ভূমি) তৃপ্তি কণা মন্ডল, প্রধান সহকারী কাম হিসাবরক্ষক কর্মকর্তা সমীর কুমার চক্রবর্তী, নাইট গার্ড মিনুয়ারা, অফিস সহকারী আরিফ রব্বানীসহ বেশ কয়েক জন কর্মকর্তা-কর্মচারী এসব ঘটনায় জড়িত থাকার প্রমান পাওয়া গেছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনার প্রেক্ষিতে পরবর্তী এসব বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে। তবে মাদক সেবনের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট প্রশাসন দেখবেন।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) তৃপ্তি কণা মন্ডল বর্তমানে মাতৃত্বকালীন ছুটিতে রয়েছেন। ফলে এসব বিষয়ে তাঁর বক্তব্য জানা যায়নি।

ফুলপুর ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা বিনয় সরকার বলেন, একজন সরকারী কর্মকর্তার ইয়াবা সেবনের বিষয়টি দু:খজনক। সরকার যেখানে মাদক নির্মূলে কাজ করছে সেখানে একজন সরকারী কর্মকর্তা হয়ে অফিসে বসে ইয়াবা সেবন কোন ভাবেই কাম্য নয়। আমরা চাই এ ঘটনার সুষ্ট বিচার হোক।

ফুলপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সাইফুল ইসলাম বলেন, ভূমি অফিসের প্রধান সহকারী কাম হিসাব রক্ষকের ইয়াবা সেবনের বিষয়টি আমি শুনেছি। তবে ভিডিও দেখিনি। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে মাদক আইনে অথবা সরকারি শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে বিচার হতে পারে।

এবিষয়ে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। ভিডিও দেখে পরে কথা বলব।

আপনার মতামত দিন