ইরানের নারীরা মাঠে গিয়ে খেলা দেখতে সব টিকেট কিনলেন

12

দেশবাংলা ডেস্ক::

কাতার বিশ্বকাপ বাছাইয়ের মূল পর্বে স্বাগতিক ইরান ও কম্বোডিয়ার ম্যাচে ইরানি নারীদের জন্য সংরক্ষিত টিকেট অনলাইনে ছাড়ামাত্র সব টিকেট বিক্রি হয়ে গেছে। ছাড়ার কয়েক মিনিটের মধ্যেই সাড়ে তিন হাজার টিকেট কিনে ফেলেন দেশটির নারীরা। আগামী বৃহস্পতিবার কম্বোডিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামবে ইরান।’

ইরানের সংবাদ সংস্থা আইএসএনএ তাদের প্রতিবেদনে জানায়, ৭৮ হাজার আসনবিশিষ্ট আজাদি স্টেডিয়ামে হতে যাওয়া ম্যাচটিতে নারীদের জন্য সাড়ে তিন হাজার টিকেট গতকাল শুক্রবার সকালে ছাড়া হয়েছিল। কয়েক মিনিটের মধ্যেই সব বিক্রি হয়ে গেছে।’

এর আগে ফিফা রয়টার্সকে জানিয়েছিল, প্রাথমিক ধাপে নারীদের জন্য চার হাজার ৬০০ টিকেট দেওয়া হবে।

এদিকে ইরানি নারীদের মাঠে গিয়ে খেলা দেখতে দেওয়ার দাবিতে ‘ওপেন স্টেডিয়াম’ নামে চলা একটি ক্যাম্পেইনের কর্মী অভিযোগ করে বলেছেন, ইরানিয়ান ফুটবল সংস্থার পক্ষ থেকে কোনোরকম ঘোষণা না দিয়েই শুক্রবার সকালে এই টিকেটগুলো অনলাইনে ছাড়া হয়।’

উল্লেখ্য, ১৯৭৯ সালে ইরানে ইসলামিক অভ্যুত্থানের পর থেকে দেশটিতে পুরুষদের খেলা দেখতে স্টেডিয়ামে যেতে পারেন না নারীরা। সম্প্রতি খেলা দেখার জন্য সাহার খোদায়ারি নামের এক নারী পুরুষের বেশে স্টেডিয়ামে ঢুকতে গিয়ে নিরাপত্তা রক্ষীদের হাতে ধরা পড়েন। বিচারে তার ছয় মাসের কারাদণ্ড হতে পারে-এমন আশঙ্কায়  ওই নারী সেপ্টেম্বরের শুরুতে আদালত প্রাঙ্গনের বাইরে নিজের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেন। এক সপ্তাহ পর হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।’

সাহারের এই নির্মম মৃত্যু ইরানের ভেতর ও বাইরে চরম ক্ষোভ সৃষ্টি করে। এমনকি সাহারের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন সারা বিশ্বের ফুটবল খেলোয়াড় ও ভক্তরা। এ ছাড়াও ইউরোপের কয়েকটি নারী ফুটবল দলের খেলোয়াড়রা তার স্মরণে হাতে নীল রঙের ব্যান্ড পরে খেলতে নামেন।’

এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ গ্রহণ না করায় সমালোচনার মুখে পড়তে হয় ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফাকেও। এ সময় অনেকে ফিফার কাছে ইরানকে ফুটবলে সাময়িক বরখাস্ত বা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করার দাবি জানায়।

এত কিছুর পরে দেশটির(ইরান) নারীরা স্টেডিয়ামে গিয়ে ওই ম্যাচ দেখতে পারবে বলে নিশ্চিত করেছিল ফিফা। সেইসঙ্গে গ্যালারির একটা অংশ নারীদের জন্য সংরক্ষিত রাখা হবে বলে জানিয়েছিল ইরান সরকার।’

আপনার মতামত দিন